স্বাস্থ্য বার্তা

গলা ব্যথা হলে কী করবেন: করোনাভাইরাস মহামারী

মৌসুম পরিবর্তনের সময় অনেকের ঠাণ্ডার সমস্যাসহ গলা ব্যথার প্রবণতা দেখা দেয়। এটি আমাদের শরীরে অস্বস্তি তৈরি করে। ঠাণ্ডা এবং জীবাণুর সংক্রমণের মাধ্যমে গলায় ব্যথা হতে পারে।

শুধুমাত্র মৌসুম পরিবর্তনই নয়, অফিসে দীর্ঘক্ষণ এসির মধ্যে থাকলেও ঠাণ্ডা লেগে গলা ব্যথা হতে পারে, টনসিলের সমস্যাও হতে পারে গলা ব্যথা।

বর্তমানে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস, যার আনুষ্ঠানিক নাম সার্স-সিওভি-২, নিশ্বাসের সাথে দেহে প্রবেশ করে। আশেপাশে কেউ হাঁচি বা কাশি দিলে বা ভাইরাস সংক্রমিত কোনও জায়গায় হাত দেয়ার পর আপনার মুখে হাত দিলে এই সংক্রমন হয়।

শুরুতে এটি আপনার গলা, শ্বাসনালীগুলো এবং ফুসফুসের কোষে আঘাত করে এবং সেসব জায়গায় করোনার কারখানা তৈরি করে। পরে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় নতুন ভাইরাস ছড়িয়ে দেয় এবং আরো কোষকে আক্রান্ত করে।

আপনার গলা ব্যথা হওয়া মানেই করোনা নয়। অনেকে একটু অসুস্থ হলেই ভয় পেয়ে যান। তবে গলা ব্যথা হলে চিন্তার কিছু নেই। কারণ ওষুধ ছাড়াই বাড়িতে নিজের যত্ন নিয়ে এবং ঘরোয়াভাবে সহজেই এই ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।


আরোও পড়ুনঃ যেসব ভিটামিন বাড়াবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা


যেভাবে পেতে পারেন গলা ব্যথা থেকে মুক্তিঃ

লবণ পানিতে গড়গড়াঃ
গলা ব্যথা হলে এর প্রাথমিক চিকিৎসা হলো গরম পানি লবণ দিয়ে গড়গড়া করা। এক গ্লাস হালকা গরম পানি নিন। এতে এক চা চামচ লবণ যোগ করে সেটি ভালোভাবে মিশ্রিত করুন। এটি গলা ব্যথা থেকে তাৎক্ষণিক মুক্তি দিতে সহায়তা করে।

লেবুর রসঃ
বিশেষজ্ঞদের মতে, লেবু আমাদের শরীরের টক্সিন দূর করার ক্ষেত্রে খুব উপকারি। তাই গলা ব্যথায় এক গ্লাস গরম পানি লেবুর রস ও এক চা চামচ মধু ভালোভাবে মেশান। দিনে অন্তত দুবার এটি পান করুন। গলা ব্যথা ও টনসিলের সমস্যা দূর করতে এটি সাহায্য করে।

আদাঃ
অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যের জন্য আদা গলা ব্যথা ভালো করতে সহায়তা করে। পানি গরম করে তাতে কয়েক টুকরো ফ্রেশ আদা দিন। এরপর এটি প্রায় ৫-১০ মিনিটের জন্য ফোটান। দিনে কমপক্ষে দুবার এই পানি পান করুন। এতে এক চা চামচ মধুও যোগ করতে পারেন।

দারুচিনিঃ
কয়েক ফোঁটা দারুচিনি তেলের সঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশ্রিত করুন। দিনে একবার এটি ব্যবহার করুন, গলার ব্যথা থেকে দ্রুত মুক্তি দিতে সহায়তা করে।

হলুদঃ
হলুদ গলা ব্যথা নিরাময়ের অন্যতম সেরা উপাদান। খানিকটা হলুদ গুঁড়ো এক গ্লাস গরম পানির সঙ্গে মিশিয়ে নিন। তারপরে সকালে খালি পেটে পান করুন। দুধের সঙ্গেও হলুদ মিশিয়ে খেতে পারেন।

মধুঃ
মধু তার অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্যগুলোর জন্য পরিচিত। এটি প্রাচীনকাল থেকেই গলা ব্যথা নিরাময়ের জন্য ব্যবহৃত হয়। এক কাপ গরম পানিতে এক থেকে দুই চামচ মধু মেশান এবং দিনে দুই থেকে তিনবার পান করুন অথবা ঘুমোতে যাওয়ার আগে আপনি এক চা চামচ মধু খেতে পারেন।

ভাপ নিনঃ
প্রথমে কান-মাথা ভালো করে জড়িয়ে নিন কাপড় দিয়ে। এরপর সামান্য লবণ দিয়ে গরম পানির ভাপ নিন। দিনে দুবার এটা করতে পারলে খুব সহজেই গলার ব্যথা কমবে।

লবঙ্গঃ
মাঝে মাঝেই মুখে দুটি লবঙ্গ রাখুন এবং সেগুলো নরম হওয়ার পর চিবিয়ে গিলে ফেলুন। এটি কার্যকরভাবে গলা ব্যথা নিরাময়ে সহায়তা করে।

রসুনঃ
রসুন অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত এবং গলা ব্যথা নিরাময়ে সহায়তা করে। রসুনের মধ্যে থাকা অ্যালিসিন গলা ব্যথার কারণ ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলতে সহায়তা করে। এটি কাঁচাও খাওয়া যায় এবং রান্না করেও খাওয়া যায়।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্ক নয় সচেতন হতে হবে। কোভিড-19 করোনার লক্ষণ আর করণীয়গুলো মেনে চলতে হবে। তাহলেই আমরা আমাদেরকে আর দেশের মানুষকে রক্ষা করতে পারবো।

Tags
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close