শিক্ষাঙ্গন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আবেদন শুরু, মানতে হবে নির্দেশনা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আবেদন শুরু, মানতে হবে নির্দেশনা। ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক (সম্মান) ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে আজ সোমবার বিকাল থেকে।

আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে ভর্তির আবেদন করা যাবে অনলাইনে। ২১ মে থেকে ৫ জুন পর্যন্ত পাঁচটি ইউনিটের অধীনে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবেন শিক্ষার্থীরা। তবে এবারের পরীক্ষায় ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছে। টাকা জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১ এপ্রিল রাত ১১টা ৫৯মিনিট পর্যন্ত।

ঢাকাসহ দেশের আটটি বিভাগীয় শহরে ভর্তি পরীক্ষা হবে। বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ভর্তি অফিসে অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আবেদন শুরু, মানতে হবে নির্দেশনা


আরোও পড়ুনঃ কম্পিউটার বেসড আয়েলস সিস্টেম


সকল শিক্ষার্থীদের জন্য জরুরি নির্দেশনা

শিক্ষার্থীদের জন্য জরুরি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যা মানতে হবে সকলকে। নির্দেশনাগুলো নিম্নরূপঃ

  • শিক্ষার্থীকে তাঁর ভর্তি কেন্দ্র হিসেবে আট বিভাগীয় শহরের যেকোনো একটিকে বেছে নিতে হবে।
  • শিক্ষার্থীর উচ্চ মাধ্যমিক ও মাধ্যমিকের তথ্য, বর্তমান ঠিকানা ও মোবাইল ফোন নম্বর এবং মা-বাবার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর লাগবে।
  • স্ক্যান করা ছবি লাগবে একটি।
  • শিক্ষার্থীকে এসএমএস করার জন্য টেলিটক, রবি, এয়ারটেল অথবা বাংলালিংক যেকোনো অপারেটরের একটি মোবাইল ফোন নম্বর থাকতে হবে।
  • আবেদন ফি শিক্ষার্থী চাইলে সাথে সাথেই অনলাইনে মোবাইল ব্যাংকিং, ইন্টারনেট ব্যাংকিং ছাড়াও কার্ড এর মাধ্যমে জমা দিতে পারবে।
  • এছাড়াও চারটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জমা দিতে পারবে। ব্যাংকগুলো হলো- সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী।
  • এ-লেভেল/ও-লেভেল/সমমান বিদেশি পাঠ্যক্রমে বা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সমতা নিরূপণের জন্য admission.eis.du.ac.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে ‘সমমান আবেদন’ বা Equivalence Application মেন্যুতে আবেদন করে তাৎক্ষণিকভাবে অনলাইনে নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে।
  • সমতা নিরূপণের পর প্রাপ্ত Equivalence ID ব্যবহার করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মতো তাঁরা একই ওয়েবসাইটে লগইন করে ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবেন।
  • ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত যারা মাধ্যমিক বা সমমান এবং ২০২০ সালের উচ্চমাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাঁরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ইউনিটে ভর্তির জন্য নির্ধারিত শর্ত পূরণ করতে পারবেন, কেবল তাঁরাই স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ইন্টারনেটর সংযুক্ত কম্পিউটার থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাডমিশন ওয়েবসাইটের (https://admission.eis.du.ac.bd) মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।


আরোও পড়ুনঃ বিদেশে স্কলারশীপ এর জন্যে প্রিপারেশন


সকল ইউনিটের জন্য সাধারণ নিয়মাবলি সমূহঃ

  • IGCSE/O Level এবং IAL/GCE A Level প্রার্থীর ক্ষেত্রে: ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত IGCSE/O Level পরীক্ষায় অন্তত পাঁচটি বিষয়ে এবং ২০২০ সালের ফল প্রকাশিত IAL/GCE A Level পরীক্ষায় অন্তত দুটি বিষয়ে উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রী ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন।
  • তাঁদের IGCSE/O Level এবং IAL/GCE A Level মোট সাতটি বিষয়ের মধ্যে যথাক্রমে চারটি বিষয়ে কমপক্ষে ‘বি’ গ্রেড ও তিনটি বিষয়ে কমপক্ষে ‘সি’ গ্রেড থাকতে হবে।
  • সমমানের বিদেশি সার্টিফিকেট/ডিপ্লোমাধারী প্রার্থীরা সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধানের অনুমতি সাপেক্ষে আবেদন করতে পারবেন। তবে সংশ্লিষ্ট অনুষদ কর্তৃক সমতা নিরূপিত হলেই কেবল তাঁরা ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন।
  • এ ছাড়া সব প্রার্থীকে সংশ্লিষ্ট ইউনিট কর্তৃক নির্ধারিত অন্য শর্ত পূরণ করতে হবে।

এবার মোট আসন ৭ হাজার ১৩৩টি যা ৫ টি ইউনিটের জন্য বরাদ্দ৷ বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটে ১ হাজার ৮১০টি, কলা অনুষদভুক্ত ‘খ’ ইউনিটে ২ হাজার ৩৭৮টি, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিটে ১ হাজার ২৫০টি, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটে ১ হাজার ৫৬০টি এবং চারুকলা অনুষদভুক্ত ‘চ’ ইউনিটে ১৩৫টি আসন।

পরীক্ষার কেন্দ্র নির্বাচনে পরামর্শ

শিক্ষার্থীদের নিজেদের পছন্দমত ৮টি বিভাগীয় শহরের যেকোনো একটিকে পরীক্ষা কেন্দ্র হিসেবে নির্বাচন করতে পারবেন। তবে আবেদনকারীকে নিজ বিভাগীয় শহরকে কেন্দ্র হিসেবে বেছে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

যে যোগ্যতা থাকালে আবেদন করা যাবে

আবেদনকারীদের ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে ‘ক’ ইউনিটের জন্য মাধ্যমিক/সমমান ও উচ্চ মাধ্যমিক/সমমান পরীক্ষায় ৪র্থ বিষয়সহ প্রাপ্ত জিপিএ’র যোগফল ন্যূনতম ৮.৫ (আলাদাভাবে জিপিএ ৩.৫),‘খ’ ইউনিটের জন্য জিপিএ’র যোগফল ন্যূনতম ৮.০ (আলাদাভাবে ৩.০), ‘গ’ ইউনিটের জন্য জিপিএ’র যোগফল ন্যূনতম ৮.০ (আলাদাভাবে ৩.৫), ‘ঘ’ ইউনিটের জন্য মানবিক শাখার ক্ষেত্রে জিপিএ’র যোগফল ন্যূনতম ৮.০ (আলাদাভাবে ৩.০) ও বিজ্ঞান শাখার ক্ষেত্রে জিপিএ’র যোগফল ন্যূনতম ৮.৫ (আলাদাভাবে ৩.৫) এবং ‘চ’ ইউনিটের জন্য জিপিএ’র যোগফল ন্যূনতম ৭.০ (আলাদাভাবে জিপিএ ৩.০) অবশ্যই থাকতে হবে।

পরীক্ষার তারিখঃ

‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হবে ২১ মে শুক্রবার, এরপর ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২২ মে শনিবার, ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৭ মে বৃহস্পতিবার, ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষা ২৮ মে শুক্রবার এবং ‘চ’ ইউনিটের পরীক্ষা ‘সাধারণ জ্ঞান’ ৫ জুন শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। সকল ইউনিটের পরীক্ষা হবে সকাল ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত।

মানবণ্টনঃ

‘ক’, ‘খ’, ‘গ’ ও ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা এবার ৬০ নাম্বারের এমসিকিউ এবং ৪০ নাম্বারের লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হবে হবে। তবে শুধুমাত্র ‘চ’ ইউনিটে ৪০ নাম্বারের এমসিকিউ এবং ৬০ নম্বরের অঙ্কন পরীক্ষা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
%d bloggers like this:

Adblock Detected

Please Unblock Your Adblocker!